October 23, 2019

ওদের কথা কেউ স্বরন করছে না

--- ২২ এপ্রিল, ২০১৩

শাকিল মাহমুদ বাচ্চু, উজিরপুর ॥ আজ সেই ২৩ এপ্রিল পাক-বাহিনীর উজিরপুরের শিকারপুরে  ৭১ সালের নরকিয় হত্যাকান্ডে দিন ।কিন্তু ওদের কথা কেউ স্বরন করছে না।ওদের অপরাধ ছিল ওরা বাংঙ্গালী সে কারনে পাক হানাদার বাহিনী নিরঅপরাধ মানুষগুলোকে চলন্ত লঞ্চে বোমা মেরে হত্যা করেছিল। দেশ স্বধীন হয়েছে দীর্ঘ ৪২ বছর আগে কিন্তু নিহত শহীদরা ও তাদের পরিবার আজও পায়নি কোন মর্যাদা। দেশের মুক্তিযোদ্বার ইতিহাসের পাক বাহিনীর হাতে ঘটে যাওয়া জগন্যতম এ হত্যাকান্ডর ঘটনাটি ঘটেছিল বরিশালের উজিরপুরের শিকারপুর এলাকায়৭১’সালের ২৩ এপ্রিল শুক্রবার সকালে ওই দিন শিকারপুর থেকে ঝালকাঠী গামী লঞ্চ প্রায় ১শত যাত্রী নিয়ে যাওয়ার পথে শেরে  বাংলা কলেজ অতিক্রম করার  পরপরই উপর থেকে হেলিকাপ্টার দিয়ে হামলা চালিয়ে ১৫জনকে হত্যা করে।এ সময় ওই লঞ্চটি অল্প সময়ের মধ্যে পানিতে ডুবে যায়।পাক-বাহিনীর কাছে তথ্য ছিল সেক্টর কমান্ডার মেজর এম এ জলিল ও মুক্তিযোদ্বারা অস্ত্র নিয়ে যুদ্বে যাচ্ছে তাদের হত্যা করার জন্যই হামলা চালানে হয়,তাদের ভুল টার্গেটের সিকার হয় নিরহ মানুষগুলে। অনেকেই পাক বাহিনী ও রাজাকারদের ভয়ে তাদের স্বজনদের  লাশটি পর্যন্ত নিতে সাহস পায়নি, ফলে নদীতে ভেষে গেছে আনেক মূত্যু দেহ । শক্তিশালী বোমার আঘাতে লঞ্চে থাকা মেধাবী ছাত্র আবুল বাশার সিকদার টুলু সহ বেশ কয়েক জনের দেহ ছিন্ন বিছিন্ন হয়ে যায় সন্ধ্যা  নদীর পানি রক্তে লাল হয়ে যায়, নিহতদের মধ্যে যাদের পরিচয় না পাওয়া গেছে তাদের কে শিকারপুর এলাকায় নওয়াব আলী চেয়ারম্যান বাড়ির অদুরে গনকবর দেয়া হয়।বেশ কিছুদিন আগে সেই গনকবরটিও নদীর ভাংঙ্গনে বিলীন হয়।  ওই সমায়ের একাধিক প্রত্যক্ষদশিরা জানিয়েছেন সে দিনের ঘটনার কথা মনে উঠলে আজ আতংকিত হই।সেই কাপুরোচিত বোমা হামলায় কতজন মানুষ প্রান হারিয়েছিল তা সঠিক ভাবে বলা যাচ্ছে না তবে ৩০ জনের মতো হবে।নিহতদের মধ্যে শুধু আবুল বাশারের নামে ওই এলাকার জয়শ্রী-মুন্ডপাশা শহীদ আবুল বাশার মেমরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় নমকরন করা হয়।শতবর্ষের উর্ধে প্রতক্ষদর্শি ওই এলাকার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নওয়াব আলী হাওলাদার এ প্রতিবেদকে জানিয়েছেন পাক বাহিনীর বোমা হামলায় লঞ্চটির মধ্যে থাকা মানুষ গুলোর রক্তে লাল হয়েছিল সন্ধ্যা নদীর পানি।আবুল বাশারসহ অনেক মানুষ প্রান হারায় সে ঘটনায় উজিরপুর মুক্তিযোদ্বা কাউন্সিল কমান্ডের সহকারী কমান্ডার আক্রাম হোসেন বলেন,পাক বাহিনী কা-পুরুষের মতো হামলা চালিয়ে লঞ্চটি বিধাস্ত করে ,পাক বাহিনীর টার্গেট  ছিলো

ফেইসবুকে আমরা