January 18, 2019

নিউট্রি-সি আর ট্যাঙ এখন পঞ্চগড়ে

--- ১৮ মে, ২০১৪

মাসুদ আমিন ॥ প্রখর রোদে প্রচণ্ড গরমে তেষ্টা মেটাতে চাই এক গ্লাস শরবত। আর এই শরবতের জন্য আমরা অনেকেই নির্ভর করি নিউট্রি-সি বা ট্যাং এর উপর।প্যাশন ফল থেকে  উৎপাদিত হয়ে বাজারে পাওয়া যায় এ সকল শরবতের প্যাকেট বা জার। ব্রাজিল,প্যারাগুয়ে,আর্জেন্টিনা এই ফলের আদি নিবাস। প্রায় সারা বছরই এটি ফল দেয়। তবে গরমকালে বেশী। সুখবর হলো,এই ফলটি এখন জন্মাচ্ছে বাংলাদেশে। খাগড়াছড়ি জেলাসহ পাহাড়ি এলাকায় এ ফলের চাষ শুরু হয়েছে।বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট প্যাশন ফলের একটি স্থানীয় জাতও উদ্ভাবন করেছেন। বারি প্যাশন ফল-১ নামে প্যাশন ফলের এ
জাতটি বর্তমানে পাহাড়ি এলাকায় চাষাবাদ শুরু হয়েছে।পার্বত্য অঞ্চলে ইদানিং প্যাশন ফলের চাষ শুরু হলেও পঞ্চগড় জেলার বানিয়াপাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত
প্রধান শিক্ষক মহসিন আলীর বাড়িতে  কয়েক বছর আগে থেকেই উৎপাদিত হচ্ছে সুস্বাদু ও মজাদার প্যাশন ফল। তারাই এখন এর বাণিজ্যিক চাষ শুরু করেছেন। তাদের কাছ থেকে চারা নিয়ে অনেকেই শখের বসে প্যাশন ফলের গাছ লাগিয়েছেন। মহসিন আলী জানান, ৬ বছর আগে তিনি  তার ভায়রার বাড়ি থেকে একটি চারা এনে বাড়িতে লাগান।কয়েক মাসের মধ্যে লতা জাতীয় গাছটি উঠে যায় পাশের নিম ও সুপারি গাছে। দুই বছরের মাথায় গাছে ফুল থেকে ফল আসে। সবুজ রঙের ফলটি দু’তিন মাসের মধ্যেই হালকা কমলা রং ধারণ করার পরই পাখ-পাখালি আসতে থাকে ফল খেতে। ফলটি দেখতে কাগজি লেবু বা কমলালেবুর মতো। ফলটির
উপরিভাগের পাতলা আবরণ (ছোলা)  তুলে ফেলে ফলের ভেতরের সুগন্ধিযুক্ত মজ্জা ৫-৬ মিনিট পানিতে চুবিয়ে রাখলে পানির রঙ ট্যাঙ শরবতের রঙ ধারণ করে। পরে এতে অতিরিক্ত পানি মিশিয়ে সামান্য চিনি দিয়ে গুলিয়ে নিয়ে শরবত তৈরি করা যায়। এর পর থেকেই বাড়িতে মেহমান এলে এই শরবত পান করতে দিতেন তিনি। দু’বছর পর তিনি জানতে পারেন এটি আসলে প্যাশন ফল।
গত কয়েক বছর যাবৎ গাছে ৫শ’ থেকে ৬শ’ ফল ধরছে। তিনি জানান, পাকা ফল থেকে বীজ নিয়ে চারা গজিয়ে ইতিমধ্যে তিনি এক একর জমিতে প্যাশন ফল বাণিজ্যিকভাবে চাষ শুরু করেছেন।এই গাছটি লতা জাতীয় হওয়ায় ইতিমধ্যে এক বিঘা জমিতে স্থায়ী মাচা দিতে হয়েছে। কৃষিবিদদের মতে, প্যাশন ফল
একটি দীর্ঘজীবি লতা জাতীয় উদ্ভিদ। মাচা কিংবা বড় গাছের ডালে উঠিয়ে দিলেই কয়েক বছর ধরে এই ফল পাওয়া সম্ভব। অল্প জায়গায় কম পরিশ্রমে এই ফল চাষ
করে বিপুল পরিমাণ আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। বাচানো যেতে পারে ট্যাঙ বা নিউট্রি- সির মতো শরবতের আমদানী খরচ।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

জানুয়ারি ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১