November 14, 2018

বাদশাহী লিচু

--- ৫ জুন, ২০১৪

রেশমা ইয়াসমিন ॥ লিচু হলো বিশ্বের সবচেয়ে রোমান্টিক ফল। প্রায় দুই হাজার বছর ধরে ফলটি এ মর্যাদা পেয়ে আসছে। বিশ্বে প্রথম ফল চাষের বই লেখা হয়েছিল ১০৫৬ সালে সেটি ছিল লিচুকে নিয়ে। বিশ্বের অনেক রাজা বাদশাহ রানী বেগমদের মন জয় করতে যুগে যুগে লিচু ফল উপহার দিয়েছেন। অষ্টম শতকে চীনা সম্রাট হুয়ান সাংও একই কাজ করে বেগমের মন জয় করেছিলেন, দক্ষিণ চীন থেকেলিচু বয়ে নিয়ে গিয়ে ছিলেন সুদূর উত্তর চীনে।
খুবই  সুস্বাদু ও দৃষ্টিনন্দন ফল হচ্ছে লিচু। বাংলাদেশেই রয়েছে নানা প্রজাতির লিচু। আমাদের দেশে যেসব জাতের লিচু পাওয়া যায় সেগুলো হলো: বোম্বাই, মাদ্রাজি, চায়না-৩, মঙ্গলবাড়ি, মোজাফ্ফরপুরী, বেদানা লিচু, বারি লিচু-১,২,৩  ইত্যাদি। লিচুগাছ লাগানোর  তিন থেকে ছয় বছর পর ফল ধরে।  ২০-৩০ বছর পর্যন্ত লিচুগাছ থেকে ফলন পাওয়া যায়। গাছ প্রতি বছরে  ৩২০০-৬০০০টি লিচু পাওয়া যায়। এলাকাভেদে এর তারতম্যও লক্ষ্য করা যায়। গ্রীষ্ণকালীন এ ফল যেমন সুস্বাদু তেমনি এতে আছে উচ্চমাত্রার ক্যালসিয়াম। আর ক্যালসিয়াম হাড়, দাত, ত্বক ও নখের জন্য খুবই জরুরি। পোষ্টমেনোপোজাল নারী যাদের মাসিক বন্ধ হয়ে গেছে তাদের  দরকার উচ্চ মাত্রার ক্যালসিয়াম যা দিতে পারে  লিচু।
লিচু শরীরে ফ্লুইডের পরিমাণ বাড়ায়। ফলে দেহের এনার্জি বাড়ে।
লিচু কার্বোহাইড্রেট ও ফাইবারের ভালো উৎস যা হজমে সহায়তা করে। এই ফলে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি আছে। এই  ভিটামিন মৌসুমী রোগ থেকে রক্ষা করে, ত্বক ও চুলের পুষ্টি জোগায়। এটি সূর্যের ক্ষতিকর অতিবেগুনী রশ্মি থেকে ত্বককে বাঁচায়। লিচুর ভিটামিন ‘এ’ রাতকানা,  কর্নিয়ার অসুখ, চোখ ওঠা,চোখের কোনা ফুলে লাল হয়ে যাওয়া,জ্বরঠোসকা
জিহ্বার ঘা, জিহ্বার চামড়া ছিলে যাওয়া ইত্যাদি রোগ প্রতিরোধ করে।
এতে রয়েছে নিয়াসিন ও রিবোফ্লাভিন নামক ভিটামিন ‘বি’ কমপ্লেক্স যা শরীরের জ্বালা পোড়া
দুর্বলতা দূর করে। লিচুতে ক্যালরির পরিমাণ কম। লিচু একটি গরম ফল। বেশি খেলে পেট গরম
হয়ে ডায়রিয়া হতে পারে। তাই   পরিমিত খাওয়াই ভালো। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অতিরিক্ত মিষ্টি লিচু পরিহার করাই উত্তম।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

নভেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০