September 25, 2018

মিষ্টি বছরের শুভেচ্ছা

--- ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫

লিটন বাশার ॥
নিত্য দিনের মতই আজো পূর্ব গগনে সূর্য উঠেছে। শীতের কুয়াশা সরিয়ে উঁকি দিয়েছে উজ্জ্বল রোদ। কিন্তু অন্য যে কোন দিনের চাইতে আজকের ভোরের আলোতে যেন বেশি মায়া মাখানো। যেন অনেক স্বপ্নের কথা বলছে সে। সামনের দিনগুলোতে অনিশ্চয়তা কেটে গিয়ে শুভময়তা ছড়িয়ে যাবে আশাজাগানিয়া কিরণ যেন সে দ্যুতি ছড়িয়ে দিচ্ছে সকল মানুষের মনে প্রানে।
– আজ শুক্রবার শুরু হচ্ছে নতুন বছরের পথচলা। সুইট সিক্সটিন ২০১৬ সালের মিষ্টি বছরের প্রথম দিনে দৈনিক ভোরের আলোর অগনিত পাঠক, শুভাকাংঙ্গী ও বিজ্ঞাপন দাতাদের প্রতি শুভেচ্ছা রইল। বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের মত আমরাও আমাদের অগণিত পাঠকদের জানাই ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’। নতুন বছরটি আনন্দে, সুখে – শান্তিতে ও সাফল্যের কানায় কানায় পরিপূর্ন হোক এই প্রত্যাশা আমাদের।

– আছে দুঃখ. আছে মৃত্যু, বিরহদহন লাগে।/ তবুও শান্তি তবু আনন্দ, তবু অনন্ত জাতে। কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গানের এ কথার মতই দুঃখ, কষ্ট সবকিছু কাটিয়ে নতুন জীবনের দিকে যাত্রার প্রেরনা নিবে মানুষ নতুন করে। নতুন বছরটি যেন সমাজ জীবন থেকে, প্রতিটি মানুষের মন থেকে গ্লানি, অনিশ্চয়তা, হিংসা, লোভ ও পাপ দূর চিরতরে দূর হয়ে যায়। রাজনৈতিক হানাহানি , হিংসা বিদ্বেষ থেমে গিয়ে আমাদের প্রিয় বরিশাল যেন সমান তালে তাল মিলিয়ে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যেতে পারে এমন প্রত্যাশা আমাদের।

– গত বছরের প্রত্যাশা আর প্রাপ্তির হিসাব খুঁজতে খুঁজতে নতুন বছরকে সামনে রেখে আবর্তিত হবে নতুন নতুন স্বপ্নের। সেই স্বপ্ন গুলো যেন কারোর কাছেই অধরা না থাকে সে কামনা করছি ।

– রাজনৈতিক সহিংসতা, নানা দুর্যোগ-দুর্ঘটনা আর ঘটনা প্রবাহের মধ্য দিয়ে বিদায় নিল ইংরেজি ২০১৫ সাল। মহাকালে মিলিয়ে গেল আরো একটি খ্রিস্টিয় বছর। ঘটনা বহুল বিদায়ী বছরে বিশ্ব জুড়ে অভিবাসী সমস্যা এবং সোনার হরিন পাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বাংলাদেশের সহজ সরল মানুষকে থাইল্যান্ড ও মালেশিয়ার গহিন অরণ্যে নিয়ে নির্মম নির্যাতনে হত্যার ঘটনা আমাদের ব্যথিত করেছে। মানুষ রুপী হায়নারা যেন আর এ দেশের সহজ সরল মানুষদের প্রলোভনে ফেলে পাচার করে মুক্তিপন আদায় শেষে হত্যা করতে না পারে সেই প্রত্যাশা করছি। আমরা আশা করছি নতুন বছরে আর কোন রাজন বা রাকিবদের এমন নির্মম মৃত্যুর মুখে পতিত হতে হবে না। আর কোন আয়লান কুর্দিকে যেন সাগর জলে ডুবে মরতে হবে না। এবার যেন হজ্জ্ব পালনে গিয়ে কোন ধর্মপ্রান মুসলমানের পদদলিত হয়ে মৃত্যুর মত দূঘর্টনা না ঘটে। পৃথিবীর আর কোন প্রান্তে যেন জঙ্গী বা সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা না ঘটে। বিশ্ব মোড়লদের মতলববাজির বিবেকের দরজা দিয়ে যেন সারা পৃথিবীর নির্যাতিত মানুষের করুন আর্তি টুকু পৌছে যায়। হাসি – কান্নায় ভরপুর বছরকে বিদায় জানাতে গিয়ে জনপ্রিয় একটি সংগীতের কয়েকটি লাইন এই নতুন বছরে শুভ ক্ষনে মনে পড়ে যায়।
সুখের দিন গুলি দূরে চলে যায়….
শুধু বলে যায়….
যে নিল বিদায় তারে ফিরে ডেক না,
পুরনো দিনের স্মৃতি মনে রেখ না…… ।
আমরাও পুরানো দিনের পুরানো বছরের কোন অনাকাংঙ্খী ঘটনা মনে রাখতে চাই না। ভূলে যেতে চাই সকল বঞ্চনা । ভোট কেন্দ্রের বাইরে রেখে পৌর নির্বাচন অনুষ্টানের মত আর কোন নির্বাচন আমরা চাই না। সাংবাদিক সহ সকল পেশার ও সাধারন মানুষের অধিকার নিশ্চিত হবে এমন প্রত্যাশা আমাদের। বৃহত্তর দল গুলোর অংশ গ্রহন ছাড়াই গত ৫ জানুয়ারীর মত আর কোন নির্বাচন আর যেন এ দেশে না হয়। নির্বাচন যেন হয় সকল রাজনৈতিক দলের অংশ গ্রহনের মধ্য দিয়ে। যেখানে ভোট প্রয়োগের ক্ষমতা থাকবে সকল ভোটারের। হিংসা , বিদ্বেষ ও জুলুমের হাত থেকে নিজেরা পরিত্রান চাই। সকলেই যেন জুলুম নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা পায় সে কামনা এই নতুন বছরে। আমরা আর ভবিষ্যতে কখনোই দেখতে চাই না রাজনীতি আর আন্দোলনের নামে পেট্টোল বোমায় কোন নিরহ মানুষের প্রানহানীর ঘটনা। নতুন বছরের ভোরের আলো যে ভাবে কুয়াশা ভেদ করে সমগ্র বিশ্বে আলো ছড়িয়েছে ঠিক সেই ভাবে নতুন আলোয় উদ্ভাসিত হোক বরিশাল তথা সমগ্র দেশের মানুষ। অর্থনীতির ধারাবাহিক অগ্রগতি যেন উন্নত বিশ্বের সাথে প্রতিযোগী করে তোলে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশকে। দেশের অভ্যন্তরীন উন্নয়ন পরিকল্পনায় যেন বৈষম্যের শিকার না হয় আমাদের জন্মস্থান বরিশাল।
পরিশেষে নতুন বছরে আমাদের অগনিত পাঠকদের মিষ্টি বছরের শুভেচ্ছা দিয়ে একটি নতুন খবর জানাতে চাই। দৈনিক ভোরের আলো পরিবারে নতুন বছরে জন্ম নিচ্ছে দৈনিক দখিনের মুখ নামের আরো একটি দৈনিক। বরিশালে এত গুলো দৈনিকের ভিরে আর কি কোন দৈনিক পত্রিকার প্রয়োজন আছে?? এমন প্রশ্নের উত্তর নিয়ে আগামী সপ্তাহে বাজারে আসছে আপোষহীন সংবাদ প্রকাশের দৃঢ় প্রত্যায় নিয়ে দৈনিক দখিনের মুখ।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০