October 23, 2019

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১১ খাতে দুর্নীতি

--- ৩১ জানুয়ারি, ২০১৯

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১১টি খাতে দুর্নীতি ও অনিয়ম খুঁজে পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এসব প্রতিহতের জন্য মন্ত্রণালয়ে ২৫ দফা সুপারিশ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে গিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেকের কাছে এসব সুপারিশ তুলে দেন দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান।

প্রতিবেদন সংক্রান্ত সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে দুদক কমিশনার বলেন, প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে বিভিন্ন ক্রয়, নিয়োগ, পদোন্নতি, বদলি, পদায়ন, চিকিৎসা দেওয়া, চিকিৎসায় ব্যবহৃত ইকুইপমেন্ট ব্যবহার, ওষুধ সরবরাহসহ বিভিন্ন দুর্নীতির উৎস চিহ্নিত করা হয়েছে।

১১টি খাতের অনিয়ম-দুর্নীতির মধ্যে রয়েছে- বিভিন্ন ক্রয়, নিয়োগ, পদোন্নতি, বদলি, পদায়ন, চিকিৎসা দেওয়া, চিকিৎসায় ব্যবহৃত ইকুইপমেন্ট ব্যবহার, ওষুধ সরবরাহসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো।

দুদক কমিশনার ড. মো. মোজাম্মেল হক খান জানান, গত বছর থেকে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি দমনের কাজ স্বল্প পরিসরে শুরু করে দুদক। এরইমধ্যে ভূমি, শিক্ষা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, সড়ক বিভাগসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

দুর্নীতির প্রতিবেদন পেয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, এই প্রতিবেদনটি বিস্তারিত পর্যালোচনা করা হবে। এ প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন ত্রুটি-বিচ্যুতি উল্লেখ করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, কিছু লোককে ইতোমধ্যেই সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অপ্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কেনা হবে না। সকল ক্রয় হবে নিড বেইজড। চিকিৎসকসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি মনিটরিংয়ের জন্য মন্ত্রণালয়ে সেল গঠন করা হচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রী।

ফেইসবুকে আমরা