July 22, 2017

মেডিকেল কলেজে তিন সাবেক ভিপি’র অস্তিতের লড়াই !

--- ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৩

news-barisal-today-sbmc

রুবেল খান ॥ শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজে শুরু হয়েছে সাবেক তিনি ভিপি’র অস্তিত্বের লড়াই। আগামী ছাত্র কল্যান পরিষদ কমিটি’র ছাত্রলীগের প্রায় ১৪ জন ভিপি ও জিএস দপপ্রার্থী নিয়ে তাদের এ লড়াই ইতোমধ্যে কঠিন ভাবে জমে উঠেছে। লড়াইয়ে জিততে তিন ভিপিই দফায় দফায় ছুটছেন দলীয় র্শীষ পর্যায়ের নেতাদের দ্বারে।

অন্যদিকে ছাত্র কল্যান পরিষদকে অবৈধ আখ্যা দিয়ে এর বিরোধীতা শুরু করেছে ছাত্রদলের নেতা-কর্মিরা। এ জন্য আগামী ২/১ দিনের মধ্যে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের জন্য কলেজ অধ্যক্ষের বরাবর লিখিত আবেদন করার কথা জানিয়েছেন ছাত্রদলের নেতারা। ইতোমধ্যে তারা দলীয় ভাবে সিন্ধান্ত নিয়েছেন বলেও জানা গেছে।

প্রকাশ, সম্প্রতি শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদের আদলে গঠিত ছাত্র কল্যান পরিষদের ভিপি, প্রো-ভিপি, এবং এজিএস অন্যান পদধারী নেতারা এমবিবিএস পাশ করে ইন্টার্নিশিপ চালু করেছেন। তারা পাশ করার সাথে সাথে বিলুপ্ত হয়ে গেছে ছাত্র কল্যান পরিষদ কমিটি।

এদিকে ঐ কমিটি বিলুপ্ত হবার পরই মেডিকেল কলেজে নতুন করে কল্যান পরিষদ কমিটি গঠনে মরিয়া হয়ে উঠেছে ছাত্রলীগ। প্রো-ভিপি এবং এজিএস পদ নিয়ে তেমন কোন আলচনা না থাকলেও ভিপি এবং জিএস পদে প্রার্থীতার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করছেন ডজন খানিক ছাত্রদল নেতারা। তারা এক এক জন সাবেক ভিপি এবং জিএসদের হাত ধরে ক্ষমতায় বসতে চাচ্ছেন। আর এ নিয়ে এতোমধ্যে শুরু হয়েছে ছাত্রলীগের মধ্যে কাদা ছোড়া-ছুড়ি।

জানা গেছে, মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক বিতর্কিত ভিপি ডাঃ এ.এস.এম সায়েম ক্যাম্পাসে অবৈধ ভাবে দখলদরিত্ব চালানোর পাশাপাশি খবরদারী শুরু করেছেন ছাত্রলীগ এবং ছাত্র কল্যান পরিষদের কমিটি নিয়ে। মেডিকেল কলেজে সাবেক মেয়র’র রাজনীতি প্রতিষ্ঠিত করছেন বলে দোহাই দিয়ে ছাত্রলীগ থেকে শুরু করে চিকিৎসকদের প্রতিটি ক্ষেত্রে তার নাক গলানোর সভাব আদৌ পাল্টায়নি। এ জন্য তিনি আগামী ছাত্রকল্যান পরিষদ কমিটিতে ভিপি এবং জিএস পদে তার পছন্দের লোক বসানোর চেষ্ঠা করছেন। তিনি মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ন আহবায়ক মুনির হোসেন সজিবকে ভিপি এবং তার বাউফল এলাকার ছাত্রলীগ নেতা সাদিকে জিএস পদ পায়িয়ে দিতে দৌরঝাপ শুরু করেছেন। তার পছন্দের প্রার্থী মুনির হোসেন সজিব বরিশালের স্থানীয় ছেলে বিধায় তাকে নিয়ে তেমন কোন আলচনা করছেন সাধারন ছাত্ররা। এমনকি সাংগঠনিক ছাত্রনেতা হিসেবে তাকে ভিপি পদেও দেখতে চান অনেকে।

অন্যদিকে ডাঃ সায়েম এর ঘোর বিরোধীতা করছেন সাবেক ভিপি ডাঃ মোঃ মাসরেফুল ইসলাম সৈকত। তিনি ছাত্রলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক মঞ্জুরুল ভুইয়া রাফিকে ভিপি এবং প্রিন্স মাহামুদকে জিএস প্রস্তাব করেছেন। কিন্তু তার মনোনিত প্রার্থী দু’জন সাংগঠনিক হলেও ভিপি-জিএস পদের যোগ্যনয় বলে মনে করেন সাধারন শিক্ষার্থীরা।

অন্যদিকে সদ্য সাবেক ভিপি ডাঃ আবু তালিব মোঃ আব্দুল্লাহর মনোহিত ভিপি প্রার্থী সুদিপ্ত মন্ডল ও জিএস প্রার্থী মোসাদ্দেক। মারুফ এর ভিপি প্রস্তাবিত বিভি-জিএস এর পক্ষে সমর্থন দিয়েছেন সদ্য সাবেক সাবেক জিএস, সৌরভ, আনিসুর রহমান, ছাত্রলীগ আহ্বায়ক হারুন সহ অন্যান্য ছাত্রলীগ নেতারা। এ জন্য সাবেক ভিপি সৈকত এর প্রার্থী নিয়ে তেমন কোন আলোচনা না থাকলেও ডাঃ সায়েম এবং ডাঃ মারুফ এর প্রার্থীদের মধ্যে চলছে হাড্ডা হাড্ডি প্রতিযোগিতা। এক ভিপি কমিটির ফরমেট জমা দিলে অন্য ভিপি তার প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। পাশাপাশি আওয়ামীলীগের র্শীষ পর্যায়ের নেতাদের কানে কু-পরামর্শ দিয়ে আসছেন। এমন অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে ডাঃ সায়েম এর বিরুদ্ধে। তবে সাবেক ভিপি মারুফ কোন প্রকার ঝামেলা এবং সিনিয়র নেতাদের সম্মান করে ৭ জন ভিপি এবং ৭ জন জিএস প্রার্থীর নামের তালিকা করে সাবেক মেয়র এর নিকট পেশ করেছেন। তার মধ্যে থেকে সাবেক মেয়র যাকে সমর্থন দিবেন সেই হবে ভিপি-জিএস। এমনটিই জানিয়েছেন ডাঃ মারুফ।

এদিকে কল্যান পরিষদের ব্যাপারে ছাত্রদলের নেতারা বলেন, এটি একটি অবৈধ কমিটি। এ কমিটির নামে প্রতি বছর লাখ লাখ টাকা আতœসাত করে নিচ্ছে ছাত্রলীগ। তারা বলেন, এখন প্রয়োজন ছাত্র সংসদ নির্বাচন। নির্বাচন হলে ছাত্ররা তাদের গনতান্ত্রিক অধিকার ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে। তাই তারা ছাত্র সংসদ নির্বাচন চাচ্ছেন। আগামী দুই একদিনের মধ্যে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের জন্য কলেজ অধ্যক্ষের নিকট আবেদন জানাবেন বলে ছাত্রদল নেতারা জানিয়েছেন। যে করেই হোক অবৈধ ছাত্র কল্যান পরিষদে কমিটি গঠনে বাধা হয়ে দাড়াবেন তারা।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

জুলাই ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১