July 22, 2017

বরিশালে হাসানাত ও হিরণ সমর্থকদের সংঘর্ষ

--- ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৩

news-today-alig

শাহীন হাফিজ ॥ বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের এক নেতাকে ঢাকায় বসে মারধর করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে নগরীর সদর রোডে সোমবার সকাল সাড়ে দশটা থেকে সাড়ে বারোটা পর্যন্ত হাসানাত ও হিরণ সমর্থক ছাত্রলীগের দু’গ্র“পের মধ্যে হামলা পাল্টা হামলা, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এতে পুলিশের এক এস.আই সহ উভয়গ্র“পের কমপক্ষে ১০ নেতা-কর্মী আহত হয়েছে।

পুলিশ দশ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ ও একটি সাউন্ড গ্রেনেড বিস্ফোরন ঘটিয়ে দু’ঘন্টাপর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

এ নিয়ে নগরীর সদর রোডে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হলে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।
    
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত হোসেন হিরণ সমর্থিত ছাত্রলীগের দু’গ্র“পের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এসময় পুরো সদর রোডের ব্যবসায়ী ও পথচারীদের মধ্যে আতংক দেখা দেয়। একপর্যায়ে ব্যবসায়ীরা তাদের দোকানপাট বন্ধ করে দেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে সাবেক মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত হোসেন হিরনের সমর্থিত মহিউদ্দিন বাবুলকে রবিবার রাজধানী ঢাকায় সাবেক চীফ হুইপ আবুল ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র সমর্থকরা মারধর করে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে প্রতিবাদে আজ সোমবার বেলা ১১টায় মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে নগরীর সোহেল চত্ত্বরস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিলের প্রস্তুতিকালে জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে তাতে বাধা দেয়। এসময় মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি জসিম উদ্দিনকে লাঞ্ছিত ও বিএম কলেজের অস্থায়ী কর্মপরিষদের ভিপি মঈন তুষার ও জিএস নাহিদ সেরনিয়াবাতকে মারধর করে রাজ্জাক সমর্থকরা। এর কিছুক্ষণ পর ঘটনাস্থলে রাজ্জাকের পক্ষে মহানগর যুবলীগ যুগ্ম আহবায়ক চুন্নু, ছলিম মৃধা ছাত্রলীগ নেতা ছলিম মৃধা ও অনিক অবস্থান নিলে তাদেরকে মারধর করে জসিম সমর্থকরা। এ নিয়ে উভয় গ্র“পের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হলে সেখানে উপস্থিত হন হাসানাত পন্থী মহানগর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক ফজলুল করিম শাহীন, ল’ কলেজের সাবেক ভিপি রফিকুল ইসলাম খোকন ওরফে মামা খোকন সহ ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি জসিম উদ্দিনের পক্ষে মহানগর শ্রমিক লীগ সভাপতি আফতাব হোসেন, মহানগর যুবলীগ আহবায়ক নিজমুল ইসলাম নিজাম, আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট কেবিএস আহমেদ কবিরের নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয় থেকে মিছিল বের করলে তাতে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে হাসানাত সমর্থকরা। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে র্সঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিএমপি’র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার আতিকুর রহমান মিয়ার নেতৃত্বে সেখানে আর্মড ব্যাটালিটন সহ বিপুল সংখ্যক পুলিশ উপস্থিত হয়ে লাঠিচার্জ করে উভয় পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।  

এডিসি আতিকুর রহমান মিয়া জানান লাঠিচার্জের পাশাপাশি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ২২ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার সময় পুলিশের উপস্থিতিতে উভয়গ্র“পের সমর্থকেরা আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন করলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি।

তবে এ ঘটনার পর পুরো নগরী জুড়ে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিয়ে যেকোন সময় আরো বড় ধরনের সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

জুলাই ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১