July 27, 2017

বরিশালে শিক্ষা মন্ত্রী ॥ নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের শিক্ষা নীতিতে গড়ে তুলতে হবে

--- ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৪

barisal-edu-minstar

আসমা আক্তার ॥ শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতার লক্ষ্য অর্জন করা আরও কঠিন। এজন্য নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের শিক্ষা নীতিতে গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন যে স্বপ্ন নিয়ে আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন করে ছিলাম ৪২ বছরেও সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়নি। দারিদ্র,দূর্নীতি দুরকরে আমরা বঙ্গবন্ধুর সেই সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে মুক্তিযুদ্ধের মত ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমাদের কাজ করতে হবে। তাই এই  যুদ্ধের প্রধান হাতিয়ার হচ্ছে আমাদের নতুন প্রজন্ম। এই নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে পারলেই আধুনিক ও বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরন সম্ভব হবে। আর এ লক্ষে বর্তমান সরকার শিক্ষা ব্যাবস্থার আমুল পরিবর্তন করে বিশ্বমানের উপকরন, প্রযুক্তি ও দক্ষতা তৈরির লক্ষে নতুন শিক্ষা ব্যাবস্থা চালু করেছে। মন্ত্রী বলেন, আজ দেশে ঝড়ে পড়ার হার কমেছে। শিক্ষার্থীরা সবক্ষেত্রে ভালো করছে।

মন্ত্রী বরিশালে ৫দিন ব্যাপী শীতকালীন জাতীয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। শনিবার সকালে আব্দুর রব সেরনিয়াবাত স্টেডিয়ামে পতাকা, বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন তিনি। ৪টি গ্র“পে বিভক্ত হয়ে সারাদেশ থেকে আগত স্কুলসমূহের প্রতিযোগিরা সপ্তাহব্যাপী বিভিন্ন প্রতিয়োগিতায় অংশ নেবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন,  বিগত ৫ বছর ধরে জাতীয়ভাবে বছরে দুটি ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজন করে চলছে সরকার। শিক্ষার পাশাপাশি খেলাধূলায় এই গুরত্ব অতীতের কোনো সরকার দেয়নি। পরিপূর্ন মানুষ তৈরি করতে শুধু মাত্র কারিকুলামে সম্ভব নয়। শারিরিক ও মানষিক বিকাশের মাধ্যমেই পরিপূর্ন মানুষ তৈরি সম্ভব। আর ভবন তৈরি করা আমাদের মূল লক্ষ্য নয়। আমাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে নতুন প্রজন্মকে গড়ে তোলা। বিশ্ব মানের শিক্ষার মান নিশ্চিত করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমরা সে লক্ষ্যে গত ৫ বছর ব্যাপক কাজ করেছি। সফলতা এবং বাহবা পেয়েছি। আর একাজ অব্যাহত থাকবে মূল লক্ষ্য বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত। তিনি বরিশালের সংসদ সদস্য শওকত হোসেন হিরনের দবীর প্রেক্ষিতে বরিশালের ঘোষিত নতুন দুটি সরকারী বিদ্যালয় স্থাপনের কাজ দ্রুত  শুরুর প্রতিশ্র“তি প্রদান করেন।

শিক্ষামন্ত্রী জানান,  প্রতিযোগিতার ১১টি ইভেন্টে সারাদেশের স্কুল ও মাদরাসার ৬৭২ জন প্রতিযোগি অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে ৪৪৮ জন ছাত্র ও ২২৪ জন ছাত্রী। শিক্ষমন্ত্রণালয়ের ১০টি বোর্ডের শিক্ষার্থীদের চারভাগে বিভক্ত করে প্রতিযোগিদের চূড়ান্ত পর্যায়ের প্রতিযোগিতা এখানে অনুষ্ঠিত হবে। তিনি আরো জানান, চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে দেশের ২৩১ টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিযোগিরা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ফাহিমা খাতুন। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সদর আসনের সংসদ সদস্য শওকত হোসেন হিরন, বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস, শিক্ষা সচিব আবদুল নাসের চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) প্রফেসর মোঃ আতাউর রহমান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান তাছলিমা বেগম, বিভাগীয় কমিশনার মোঃ নূরুল আমীন, জেলা প্রশাসক শহীদুল আলম, বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. বিমল কৃঞ্চ মজুমদার, প্রমূখ। মন্ত্রীর সাথে তার স্ত্রী কে, উ জোহরা জেসমিন উপস্থিত ছিলেন।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর তাসলিমা বেগম, সিলেট শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর তোফাজ্জল হোসেন, রাজশাহী বোর্ডের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রফেসর মোঃ আব্দুর রউফ মিয়া, কুমিল্লা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোঃ ওয়ালিউর রহমান, যশোর বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোঃ আমিরুল আলম খান, চট্টগ্রাম  বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আলাউদ্দিন মিয়া ও মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের রেজিস্ট্রার একেএম সাইফুল্লাফ।

অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন রাজশাহীর অগ্রনি স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক আব্দুর রোকন মাসুম, ময়মনসিংহ জিলা স্কুলের শিক্ষক আবুল কাশেম।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

জুলাই ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১