July 22, 2017

মৃত্যুকে জয় করে তুমি ফিরে এসো বীরের বেসে

--- ২৮ মার্চ, ২০১৪

mp-hiron

লিটন বাশার ॥ জানি হয়তো ফিরে আর আসবে না তুমি কোনদিনই এ ধরার বুকে। তবু মন সায় দিচ্ছে না। মন বলে ‘ তুমি ছিলে, আছো, থাকবে – চীর দিন অমলীন। এ ভাবে মৃত্যু তোমার মত বীরের পক্ষে বড়ই বেমানান। তাই তো মনে মনে আল্লাহর নাম ধরে বার বার ডাকি ‘ তুমি ফিরে এসো মৃত্যুকে জয় করে’। তোমার জীবন মৃত্যুর এ সন্ধিক্ষনে আজ ঘরে ঘরে দ্বারে দ্বারে শুধুই ভক্তবৃন্দের চোখের পানি। কিছুতেই শুকায় না, শেষ হয় না। কখন কোনদিন তুমি তাদের চোখের পানি মুছিয়ে দিয়ে মুখে হাসি ফোটাবে সেই প্রত্যাশায় তাদের নির্ঘূম প্রহর কাটে। তোমার প্রিয় নগরী , তোমার প্রিয় জন্ম স্থানের মানুষ গুলো প্রিয় মুখটার কথা শুনতে ব্যাকুল হয়ে আছে। তারা তোমার সু-খবরের প্রত্যাশায় রয়েছে । তাদের সে স্বপ্ন ভেঙ্গে দেয় যখন টিভি পর্দায়- দু:সংবাদ রটে যায় তখন শয়তান জীভ কাটে লজ্জায়। বিবেকের দংশন যাদের নেই তাদের উপর আস্থা হারিয়ে উদাসীন মানুষ আজ হাল ভাঙ্গে মনে শুধু বলছে যা হওয়ার তাই হোক। তুমি শুধু জেগে উঠো। আমাদের মাঝে ফিরে এসো। এই প্রত্যাশা ছাড়া আর কোন প্রত্যাশা নেই উৎকন্ঠিত মানুষের মাঝে। তোমাকে যারা মৃত্যুর আগেই ওপারে ঠেলে দিয়ে পেশাদারিত্বের নামে অশুভ প্রতিযোগিতার নামে প্রতিহিংসায় লিপ্ত তাদের আল্লাহ ক্ষমা করুন। আমরা এই নিলর্জ্জ বিভ্রান্তিকর খবর অসত্য প্রমান করে ফিরে আসার প্রত্যাশায় রইল। তুমি ফিরে এসে সেই বীরের বেসে , যে বেসে তুমি বহুবার বিজয়ী হয়ে লাখো ভক্ত অনুগতদের মুখে হাসি ফুটিয়েছো ।

এবার তোমার ফিরে আসা হবে সবচেয়ে বড় বীরত্বগাথা ও গৌরবের। যে হাসি ভক্তদের মাঝ থেকে ফুরাবে না কখনো। জননেতা জনাব শওকত হোসেন হিরন মাত্র ২৮ বছর বয়সে দেশের সবচেয়ে সর্ব কনিষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে বরিশাল সদর উপজেলাবাসীর মন জয় করেন। এরপর রাজনীতির নানান চড়াই- উৎড়াই পেরিয়ে ২০০৮ সালের ৪ আগষ্ট জনতার রায়ে সিটি মেয়র নির্বাচিত হন। বরিশাল নগরীকে সাজিয়ে তোলেন দৃষ্ঠি নন্দন নগরী হিসাবে। ৫৮ বর্গ কিলোমিটার এই নগরীর চেহারা পাল্টে দিয়ে তিনি মানুষের ভালবাসার হৃদয়ে নতুন মাত্রা যুক্ত করেন। সর্বশেষ গত ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনে তিনি বরিশাল সদর আসনের সংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। বরিশালের উন্নয়নের শর্যেবীর্যে লেগে থাকা এ মানুষটি যখন বরিশালের প্রান পুরুষ হিসাবে রাজনীতির সিড়ি বেয়ে আলো ছড়াতে শুরু করলেন তখনই ঠিক গত ২২ মার্চ আকস্মিক   মস্তিকের রক্তক্ষরন জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। রাতেই তাকে এ্যাম্বুলেন্স যোগে ঢাকার এ্যপোলে হাসপাতালে নিয়ে মস্তিকের অস্ত্রপচার করা হয়। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায়  ২৪ মার্চ তাকে সিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এ্যম্বুলেন্স যোগে সিঙ্গাপুরে নিয়ে গ্রীনঈগল হসপিটালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার মস্তিকে দ্বিতীয় দফা অস্ত্রপচার করা হলেও তেমন উন্নতি হয়নি। বরং গতকাল সন্ধ্যায় তার লাইফসার্পোট বাড়ানো হয়। হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে হিরনের অবস্থা শংকটাপন্ন। তার পুত্র শিজান ও মেয়ে রোশনী সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে গেছে।

শুক্রবার সকালে তারা হাসপাতালে পৌছাবেন। সেখানে মেডিকেলবোর্ড বসে হিরনের সম্পর্কে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবেন চিকিৎসকরা। এদিকে বৃহস্পতিবার বিকালে দু’টি বেসরকারী চ্যানেল শওকত হোসেন হিরন সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করলে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়।  সাংবাদিকতার এ অশুভ প্রতিযোগিতা আমাদের কাম্য নয়। বিশেষ করে বরিশালের মিডিয়া বান্ধব রাজনৈতিক নেতা হিসাবে সাংবাদিকদের হৃদয়ের মনিকোঠায় স্থান করে নেওয়া শওকত হোসেন হিরনের জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে আমাদের সকলের ধর্য্যধারন করা উচিৎ বলেই আমরা মনে করছি। আল্লাহ রব্বুল আল-আমীন বলেন ধৈর্য্যশীলদের ভাল ফল দেন। আমাদের এ চরম বিপর্যয়ের মুহুর্তের প্রতিটি দিনক্ষনকে আমরা ধর্য্য ও সহনশীলতার সাথে মোকাবেলা করতে পারি। আল্লাহ যেন সেই তওফিক দান করেন। আল্লাহ আমাদের প্রতি দয়াশীল হউন। শওকত হোসেন তথা আমাদের সকলের প্রিয় হিরন ভাই সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসুক এ দোয়া কামনা করছি প্রতিটি মানুষের কাছে।

ফেইসবুকে আমরা

পুরনো সংখ্যা

জুলাই ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১